বাংলাদেশের টেক্সটাইল শিল্পের ইতিহাস

বাংলাদেশের টেক্সটাইল শিল্পের ইতিহাস

বাংলাদেশের টেক্সটাইল শিল্পের ইতিহাস,পরিসংখ্যান, ভবিষ্যৎ ও প্রতিবন্ধকতা নিয়ে কিছু কথা; ১৯৬৯ এর দশকে স্থানীয় বাঙালি উদ্যোক্তারা তাদের নিজস্ব বৃহৎ টেক্সটাইল এবং পাট কারখানা স্থাপন করেছিলেন।স্বাধীনতার পরে, টেক্সটাইল এবং পোশাক শিল্প বিশেষত তৈরি পোশাক খাতকে কেন্দ্র করে বাংলাদেশ রফতানিমুখী শিল্পায়ন গ্রহণ করেছে।বাংলাদেশের টেক্সটাইল শিল্প গত ২৫ বছর ধরে মূল রফতানি বিভাগ এবং বৈদেশিক মুদ্রার একটি প্রধান উত্স হয়ে দাঁড়িয়েছে। বর্তমানে দেশে প্রতি বছর পোশাক রফতানি করে প্রায় ৫ বিলিয়ন ডলারের পণ্য উত্পাদন হয়। এই শিল্প প্রায় ৫ মিলিয়ন কর্মীদের কর্মসংস্থান প্রদান করে যার মধ্যে ৯০% মহিলা।

 

বাংলাদেশের টেক্সটাইল শিল্পের ইতিহাস

 

বস্ত্র ও পোশাক রফতানি বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের প্রধান উৎস। ২০০২ সালের মধ্যে টেক্সটাইল, পোশাক এবং তৈরি পোশাকের রফতানি (আরএমজি) বাংলাদেশের মোট পণ্য রফতানির ৭৭% ছিল।১৯৭২সালে, বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) $৬.২৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে অনুমান করে এবং ২০১৪ সালের মধ্যে তা বেড়ে দাঁড়ায় $১৭৩.৮২ বিলিয়ন ডলারে, যার রফতানি থেকে $৩১.২ বিলিয়ন ডলার হয়, যার মধ্যে ৮২% তৈরি পোশাক ছিল।
২০১৬ সাল পর্যন্ত পোশাক শিল্পে চীনের পরেই বাংলাদেশ ২য় স্থানে ছিল।বাংলাদেশ পশ্চিমা দ্রুত ফ্যাশন ব্র্যান্ডের বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম পোশাক রফতানিকারক দেশ। পশ্চিমা ব্র্যান্ডগুলির রফতানি চুক্তির ষাট শতাংশ ইউরোপীয় ক্রেতাদের সাথে এবং প্রায় ত্রিশ শতাংশ আমেরিকান ক্রেতাদের সাথে এবং দশ শতাংশ অন্যদের কাছে।শুধুমাত্র ৫% টেক্সটাইল কারখানা বিদেশি বিনিয়োগকারীদের মালিকানাধীন, বেশিরভাগ উত্পাদন স্থানীয় বিনিয়োগকারীদের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়।
২০১৬-২০১৭ অর্থবছরে আরএমজি শিল্প $২৮.১৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় করেছে, যা রফতানির মোট রফতানি আয়ের ৮০.৭% এবং জিডিপির ১২.৩৬% ছিল;বর্তমানে $২০বিলিয়ন ডলারের ব্যবসার মাধ্যমে সর্বাধিক পোশাক উৎপাদক হিসেবে বিশ্বে বাংলাদেশ দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে যার ৮০ শতাংশই আয় করেছে পণ্য রপ্তানি করার মাধ্যমে। বাংলাদেশে টেক্সটাইল শিল্পের বিকাশের প্রধান কারণ হলো পরিশ্রমী শ্রমশক্তি।

বাংলাদেশের টেক্সটাইল শিল্পের ইতিহাস

 

বাংলাদেশ ২০২০-২০২১ সালে এই খাত থেকে $50 বিলিয়ন আয় করার লক্ষ্য নিয়েছে।রফতানি প্রচার ব্যুরো (ইপিবি) গার্মেন্টস খাতে ৮.৭৬% প্রবৃদ্ধি নিবন্ধ করেছে।
বাংলাদেশ পোশাক শিল্পের সামনে যে চ্যালেঞ্জ রয়েছে তা চূড়ান্ত। শিল্পে সাফল্য লাভ করার জন্য আন্তর্জাতিক ক্রেতাদের কাছ থেকে নিয়মিত অর্ডার পাওয়া দরকার। এই ক্রেতারা মূলত দাম, সীসা সময় এবং মান সম্পর্কে আগ্রহী।
Sources: ask, Wikipedia, quora, assignment point.

About the Author

Ahmed Galib

Dept. of Yarn Engineering-46,

Bangladesh University of Textiles

Join Our FB Group

 

You May Also Read: 

 

 

 

 

error: Content is protected !!